মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:১১ পূর্বাহ্ন

শবে বরাতে ইবাদত রোজা ও কবর জয়িারত

শবে বরাতে ইবাদত রোজা ও কবর জয়িারত

হজিরি অষ্টম মাস শাবানরে ‘লাইলাতুম মনি নসিফি শাবান’ খ্যাত ১৪তম রাতকে বলা হয় শবে বরাত। ভারতীয় উপমহাদশেে ধুমধামরে সঙ্গে র্অধ কংিবা রাতজুড়ে ইবাদত, হালুয়া-রুটি বতিরণ, গোনাহ মাফে গোসল, কবর জয়িারতসহ আলোক সজ্জার মাধ্যমে পালতি হয় শবে বরাত। শবে বরাত নয়িে রয়ছেে নানা মতর্পাথক্য। শবে বরাত নয়িে কউে কউে একবোরইে অতরিঞ্জতি করনে আবার কউে কউে একে একবোরইে ছড়েে দনে, যা সাধারণ মানুষকে চরম বভ্রিান্ততিে ফলে।ে হাদসিরে সনদ র্দুবল হোক আর মজবুত হোক এ রাতরে ফজলিত সর্ম্পকে রয়ছেে হাদসিরে র্বণনা। তবে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ রাতে নজি ঘরে অবস্থান করে নফল ইবাদত-বন্দগেতিে অতবিাহতি করছেনে। এক হাদসিে এসছে-ে হজরত মুয়াজ ইবনে জাবাল রাদয়িাল্লাহু আনহু বলনে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলছেনে, ‘আল্লাহ তাআলা র্অধ শাবানরে রাতে (শাবানরে ১৪ তারখি দবিাগত রাত)ে সৃষ্টরি দকিে (রহমতরে) দৃষ্টি দনে এবং মুশরকি ও বদ্বিষে পোষণকারী ব্যতীত আর সবাইকে ক্ষমা করে দনে।’ (ইবনে হব্বিান) উল্লখেতি হাদসিরে আলোকে এ রাতে শরিকমুক্ত থকেে পরস্পররে ঝগড়া-ববিাদ থকেে মুক্ত হয়ে আল্লাহর কাছে ক্ষমা র্প্রাথনা করার নর্দিশে এসছে।ে তাতে আল্লাহ তাআলা এ রাতে বান্দাকে ক্ষমা করে দবেনে এবং তাদরে প্রতি রহমতরে দৃষ্টি দবেনে। শায়খ আলবানি রাহমাতুল্লাহি আলাইহি এ হাদসিটকিে হাসান বলছেনে। এ রাতরে রোজা শাবান মাসরে ১৪ তারখি রাতে ইবাদত বন্দগেরি পর রোজা পালন প্রসঙ্গে এক হাদসিে এসছে-ে হজরত আলি ইবনে আবু তালবে রাদয়িাল্লাহু আনহু থকেে র্বণতি, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলছেনে, ‘পনরে শাবানরে রাতে (১৪ তারখি দবিাগত রাত) যখন আসে তখন তোমরা এ রাতটি ইবাদত-বন্দগেতিে কাটাও এবং দনিরে বলোয় রোজা রাখ। কনেনা, এ রাতে র্সূযাস্তরে পর আল্লাহ তাআলা প্রথম আসমানে আসনে এবং বলনে, কোনো ক্ষমার্প্রাথী আছে ক?ি আমি তাকে ক্ষমা করে দবে। আছে কি কোনো রযিকির্প্রাথী? আমি তাকে রযিকি দবে। এভাবে সুবহে সাদকে র্পযন্ত আল্লাহ তাআলা ডাকতে থাকনে।’ (ইবনে মাজাহ) হাদসিটকিে কউে কউে জয়ীফ বা র্দুবল বলছেনে আবার কউে কউে এটকিে মওজু (চরম র্দুবল বা ভ্রান্ত) বলছেনে। অনকে ইসলামকি স্কলার এ দনি রোজা রাখাকে মাসনুন বলছেনে আবার অনকেইে মোস্তাহাব বলছেনে। উল্লখ্যে য,ে অনকেে আবার এ দনি উপলক্ষে রোজা পালনকে সুন্নত বলনে। প্রখ্যাত ইসলামকি স্কলার আল্লামা তকি ওসমানরি ইসলাহি খুতবায় এ হাদসিকে জয়ীফ বলা হয়ছেে আর এ দনিরে রোজাকে ‘সুন্নাত’ মনে করাকে ভুল বলা হয়ছে।ে
রোজা সর্ম্পকতি হাদসিটরি সনদ র্দুবল হোক আর অতি র্দুবল হোক কংিবা ভ্রান্ত হোক, যারা আইয়ামে বীজরে রোজা পালন করনে র্অথাৎ প্রত্যকে আরবি মাসরে ১৩, ১৪ ও ১৫ তারখি রোজা রাখনে তাদরে রোজা রাখতে বাধা নইে। এ রাতে কবর জয়িারত হজরত আয়শো রাদয়িাল্লাহু আনহা থকেে র্বণতি কোনো এক রাতে প্রয়ি নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে না পযে়ে খোঁজ নতিে বরে হলাম এবং (জান্নাতুল) বাকতিে গয়িে তাঁর সাক্ষাৎ পলোম। তনিি মুসলমি উম্মাহর জন্য দোয়া করছলিনে। তনিি আমাকে বললনে, হে আয়শো! তোমার মনে কি ভয় হচ্ছে য,ে আল্লাহ ও তাঁর রাসুল তোমার প্রতি জুলুম করবনে? আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসুল, আমি মনে করছেলিাম আপনি হয়তো অন্য কোনো ববিরি ঘরে তাশরফি নযি়ছেনে। তখন প্রয়ি নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললনে, ‘নশ্চিয়ই মহান আল্লাহ শাবান মাসরে মধ্য রাতে (১৪ শাবান দবিাগত রাত)ে দুনযি়ার আসমানে আসনে এবং বন-িকলবরে (কলব গোত্ররে) বকরগিুলো পশমরে চযে়ওে বশেি গোনাহগারকে ক্ষমা করে দনে।’ (তরিমজি,ি ইবনে মাজাহ, মুসনাদে আহমদ) এ হাদসিটকিওে সনদরে ব্যাপারে র্দুবল বলা হয়ছে।ে অনকেে একে ভ্রান্ত বলছেনে। একান্তই যদি কউে এ রাতে কবর জয়িারত করতে চায় তার উচতি একাকি জয়িারত করা। কনেনা প্রয়ি নবি একাকি কবর জয়িারতে গয়িছেনে বলইে হাদসিে উল্লখে হয়ছে।ে আবার অন্য হাদসিে হজরত আয়শো রাদয়িাল্লাহু আনহা র্বণনা করনে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললনে, ‘জবিরলি আলাইহসি সালাম আমার কাছে এসছেলিনে এবং বললনে, আপনার প্রভু আপনাকে নর্দিশে দযি়ছেনে (জান্নাতুল) বাকতিে যাওয়ার জন্য এবং তাদরে জন্যে ক্ষমা র্প্রাথনা করার জন্য।’ (মুসলমি) সুতরাং শবে বরাতে রোজা ও কবর জয়িারতসহ নানা বষিয় নয়িে বাড়াবাড়ি ও ছাড়াছাড়ি করে ফতেনা ছড়ানো একবোরইে অবান্তর। নসিফা শাবান যহেতেু গুরুত্বর্পূণ রাত। সহেতেু এ রাতে আয়োজন ছাড়া একাকি ইবাদত-বন্দগে,ি নফল নামাজ, জকিরি-আজকার- এর মাধ্যমে অতবিাহতি করাই শ্রয়ে। তাই- > আনুষ্ঠানকিতা ছাড়া (নজি ঘর)ে রাত জগেে ইবাদাত করা। তা হতে পার-ে নফল নামাজ, জকিরি-আজকার, কুরআন তলোওয়াত ও তাওবা-ইস্তগিফার ইত্যাদ।ি রোজা ও কবর জয়িারত ছাড়াও হাদসিে সছে-ে ‘এ রাতে র্সূযাস্তরে সাথে সাথে আল্লাহ তাআলা পৃথবিীর আকাশে নমেে আসনে এবং ফজর র্পযন্ত মানুষকে তাঁর কাছে ক্ষমা, রোগ মুক্ত,ি জাহান্নাম থকেে মুক্ত,ি রজিকিসহ ইত্যাদি বধৈ প্রয়োজনীয় চাহদিার জন্য তাঁর কাছে র্প্রাথনা করতে আহ্বান করতে থাকনে।’> যারা র্বণতি হাদসিগুলোকে (জয়ীফ) র্দুবল কংিবা (মওজু) অতি র্দুবল বা ভ্রান্ত মনে করনে, তারা রোজা না রাখলওে যারা নয়িমতি আরবি মাসরে আইয়ামে বীজরে রোজা পালন করনে তারা যথারীতি রোজা পালন করবনে। > আনুষ্ঠানকিতা ছাড়াই একাকি জাঁকজমকবহিীন কবর জয়িারত করা যতেে পার।ে কনেনা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কাউকে না জানয়িে একাকি জান্নাতুল বাকতিে গয়িে কবর জয়িারাত করছেলিনে। এমনকি যা তনিি হজরত আয়শো রাদয়িাল্লাহু আনহাকওে জানানন।ি
কবর জয়িারতরে হাদসিটি জয়ীফ কংিবা মওজু যা-ই হোক; যারা যে বশ্বিাস লালন করনে, সভোবে আমল করনে। কন্তিু কবর জয়িারত করাই যাবে না কংিবা করতইে হবে এর কোনোটইি ফতেনা ছাড়া ইসলামরে জন্য কল্যাণজনক নয়। আল্লাহ তাআলা মুসলমি উম্মাহকে শবে বরাত নয়িে বাড়াবাড়ি ও ছাড়াছাড়ি থকেে হফোজত করুন। হালুয়া-রুট,ি গোসল করা, আলোক সজ্জাসহ সব ধরনরে রুসম রওেয়াজ থকেে হফোজত থাকার তাওফকি দান করুন। পক্ষ-েবপিক্ষে সব ধরনরে বর্তিক থকেে হফোজত থাকার তাওফকি দান করুন। আমনি।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2012
Design By MrHostBD