মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:০৩ পূর্বাহ্ন

পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র চীনা শ্রমিক হত্যাসহ ভাংচুরের ঘটনায় পৃথক দু’টি মামলা : গ্রেফতার ১৪

পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র চীনা শ্রমিক হত্যাসহ ভাংচুরের ঘটনায় পৃথক দু’টি মামলা : গ্রেফতার ১৪

কলাপাড়া প্রতিনিধি:
পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ইউনিয়নে নির্মিতব্য পায়রা ১৩২০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বাংলাদেশী ও চীনা শ্রমিকদের মধ্যে হামলা ভাংচুর সংঘর্ষের ঘটনায় বাংলাদেশী শ্রমিক ও তাদের সহায়তাকারীদের বিরুদ্ধে ভাংচুর ও লুটপাটের মামলা দায়ের করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কলাপাড়া থানায় মামলাটি দায়ের করেন তাপ বিদ্যুত কেন্দ্রের কর্মরত চীনা নাগরিক, বিসিপিসি এল এর নিরাপত্তা পরিচালক ওয়াং লিবিং। মামলায় ছয় শত জন অজ্ঞাত শ্রমিককে আসামী করা হয়েছে। পুলিশ বৃহস্পতিবার এ মামলায় ঢাকা থেকে ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে। এছাড়া তাপ বিদ্যুত কেন্দ্র এলাকার আশপাশের গ্রামের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে লুট হওয়া দুইটি ল্যাপটপ উদ্ধার করেছে। গ্রেফতার করা হয়েছে আরও চার জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। লুটপাটের মামলায় মামুন (২০), সজিব শরীফ (২০), জলিল শরীফ (৪২) ও সুজনকে শুক্রবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এদেও বাড়ি কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ইউনিয়নের পশ্চিম গন্ডামারি ও মধুপাড়া গ্রামে। এছাড়া চীনা শ্রমিক ঝাং ইয়াং ফাং নিহতের ঘটনায় আরও একটি হত্যা মামলা হয়েছে। এই মামলায় ছয় শত জনকে অজ্ঞাত আসামী করা হয়েছে। এ দিকে দিনে ও রাতে তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের পিছনের দিকের একটি অংশের দেয়াল টপকে আতকিংত শ্রমিকদের অনেকেই চলে গেছেন। তাপ বিদুৎ কেন্দ্রের জনশক্তি সরবরাহকারি প্রতিষ্ঠানের একাধিক প্রতিনিধি জানান, আতকিংত হয়ে তাদের প্রায় সকল শ্রমিক চলে গেছে। আজ (শুক্রবার) পর্যন্ত সকল ধরনের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা দফায় দফায় বৈঠক করে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করলেও বাঙালী ও চায়না শ্রমিকরা কাজে যোগদান করেনি। জানা গেছে, মামলা দায়েরের পর থেকে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকার আশে পাশের গ্রামের বাড়িতে পুলিশ অভিযান চালিয়েছে। গ্রেফতারের আতঙ্কে এলাকা ছেড়েছে অনেক পুরুষ মানুষ। গ্রামের বেশিরভাগ বাড়িতে নারী ও শিশুরাই শুধু অবস্থান করছেন। তাদের চোখে-মুখেও রয়েছে আতঙ্কের ছাপ। এলাকাজুড়ে থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে। কলাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম জানান দায়ীদের শণাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে। মঙ্গলবার বিকেলে পায়রা তাপ বিদ্যুত কেন্দ্রে কর্মরত শ্রমিক সাবিন্দ্র দাস বয়লারের ওপর থেকে নিচে পড়ে নিহত হয়। এনিয়ে লাশ গুমের গুজবে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা প্লান্ট অভ্যন্তরে হামলা চালায়। সংঘাত হয় চায়নীজ শ্রমিকদের সঙ্গে। রাতে ফের শ্রমিকদের নাম করে কয়েক শ’ সন্ত্রাসী প্লান্ট অভ্যন্তরে হামলা ভাংচুর চালায়। এতে আহত এক চীনা শ্রমিক বরিশালে চিকিৎসাকালে নিহত হন। বর্তমানে প্লান্ট এলাকায় পুলিশ র‌্যাব পাহারা রয়েছে। সাধারণ শ্রমিকদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে আসছে। পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে বলে পুলিশ নিশ্চিত করেছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সর্বোচ্চ সতর্কতায় রয়েছে ।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2012
Design By MrHostBD