বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৩২ পূর্বাহ্ন

আগৈলঝাড়ায় জমে উঠেছে পোনা মাছের পাইকারি বাজার

আগৈলঝাড়ায় জমে উঠেছে পোনা মাছের পাইকারি বাজার

আগৈলঝাড়া প্রতিনিধিঃ
বরিশালের আগৈলঝাড়ায় জমে উঠেছে দক্ষিণাঞ্চলের সর্ববৃহৎ পোনা মাছের পাইকারি বাজার। ডিম থেকে পোনা মাছ উৎপাদন ও বিক্রি করে এখন অনেক পরিবার স্বাবলম্বি হয়েছে। এসব পোনা মাছ বিক্রির হাট বসে উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের দাসেরহাটে। প্রতিদিন মাছের পোনা কিনতে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে ক্রেতারা আসেন এই হাটে। ভোর হতে না হতেই প্রতিদিন জমে উঠে পোনা মাছের বাজার। যশোরসহ বিভিন্ন জেলা থেকে উন্নত জাতের মাছের ডিম সংগ্রহ করে উপজেলার মৎস্য ব্যাবসায়ীরা পুকুরে চাষাবাদ করে ডিম থেকে রেনু ফোটায়। এসব রেনু ২ থেকে ৫ ইঞ্চি হলে ব্যবসায়ীরা বাজারে বিক্রি করে অধিক লাভবান হচ্ছে। এসব মাছের মধ্যে রয়েছে রুই, কাতলা, মৃগেল, মনোসেক্স তেলাপিয়া, নাইলোনটিকা, কারফু, পাংগাস, চায়নাপুঠি, টাটকিনাসহ প্রায় ১৫ থেকে ২০ প্রজাতির বিভিন্ন জাতের পোনা মাছ এ বাজারে বিক্রি হয়। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুম এলেই বেড়ে যায় পোনা মাছের চাহিদা। উপজেলার বিভিন্ন ফার্মের মালিক মামুন বেপারী ও ক্রেতা সুমন সরদার এর সাথে কথা বলে জানা যায় এই বাজারটিতে কয়েক বছর ধরে পোনা মাছ বিক্রি হয়ে আসছে। কিন্ত বর্তমানে এ বাজারে পোনা মাছ বিক্রির সুনাম দেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলায় ছড়িয়ে পড়ায় প্রতিনিয়ত বাড়ছে ক্রেতা-বিক্রেতাদের ভিড়। দাসেরহাট মৎস্য ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি সরদার আনোয়ার হোসেন ও সাধারন সম্পাদক মোঃ বাবুল বেপারী জানান, এই এলাকার শতশত মৎস্য চাষী বিভিন্ন নালা, ডোবা, পুকুরে পোনা মাছের আবাদ করে ৫শতাধিক লোকজন স্বাবলম্বি হচ্ছে। দাসেরহাটে দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে মাছ ক্রয়ের জন্য ট্রাক, মিনিট্রাক, নসিমন, ভ্যান যোগে মাছের পোনা ক্রয় করে বিভিন্ন এলাকার হাট বাজার ও গ্রামাঞ্চলে বিক্রি করছে। দাসের হাট বাজার থেকে স্বল্পমূল্যে পোনা মাছ ক্রয় করে অন্য বাজারে নিয়ে আবার অধিক মূল্যে বিক্রি করে তারা লাভবান হচ্ছে অনেক বিক্রেতারা। স্বল্প পুঁজিতে অধিক লাভবান হওয়ায় মানুষ অন্য পেশা ছেড়ে এই পেশায় ঝুঁকে পড়েছে। মৎস্য ব্যবসায়ী মনির সরদার বলেন, অনেক বছর ধরে তিনি এ বাজারে মাছের পোনা বিক্রি করে আসছে। বর্তমানে মাছের খাবারের মূল্যে বৃদ্ধি হওয়ায় গত বছরের চাইতে এ বছর মাছের পোনার দাম বেশী দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। মাছের খাবারের মূল্য কম হলে মাছের পোনার দাম কম হতো। মাছ ক্রেতা মহিউদ্দিন জানান, এ অঞ্চলের মাছের পোনার চাহিদা মেটানোর পর দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করা হচ্ছে। আরেক ক্রেতা রহমান জানায়, এ বাজারে প্রায় শতাধিক পোনা মাছ ফার্ম মালিকেরা মাছের পোনা নিয়ে এ বাজারে প্রতিনিয়ত বিক্রয়ের জন্য নিয়ে আসে। দাসেরহাট মৎস্য ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমিতির কার্যকরী সদস্য ও বরিশাল জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাহাত বিন ইসলাম জানান, এ বাজারটি গৌরনদী-আগৈলঝাড়া মহাসড়কের পাশে অবস্থিত হওয়ায় এখন পোনা মাছ বিক্রির একটি গুরুত্বপূর্ণ বাজার হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। এ বাজারে প্রতিনিয়ত ফরিদপুর, মাদারীপুর, শরিয়তপুর, ভাঙ্গা, গোপালগঞ্জসহ দক্ষিণাঞ্চলেরর বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিন ট্রাক, মিনিট্রাক, ভ্যানসহ বিভিন্ন যানবাহন নিয়ে পোনা মাছ ক্রয়ের জন্য আসেন। বর্তমানে প্রতিদিন সকালে গড়ে ২৫ থেকে ৩০ লক্ষ টাকার পোনা মাছ বিক্রি হয় বলে ব্যবসায়ী সূত্রে জানা যায়। এ বাজারে পোনা মাছ বিক্রি করে আগৈলঝাড়া উপজেলার অনেক পরিবার স্বাবলম্বি হলেও বাজার উন্নয়নের জন্য তেমন কোন সরকারী ভাবে বরাদ্ধ পাওয়া যাচ্ছে না। মৎস্য ব্যবসায়ীরা জানান, বর্তমানে সরকারী ভাবে একটি টল ঘরের বরাদ্ধ পাওয়া গেলে পোনা মাছের সাথে বড় মাছেরও পাইকারি বাজার স্থাপন করা সম্ভব। এব্যপারে ৪নং গৈলা মডেল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও দাশেরহাট বাজার কমিটির সভাপতি মোঃ শফিকুল ইসলাম টিটু তালুকদার জানান, পোনা মাছের পাইকারি বাজারটি সম্প্রসারনের জন্য অচিরেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2012
Design By MrHostBD