শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:১৯ অপরাহ্ন

বাকেরগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধ, আদালতের নিষেধাজ্ঞা জারি

বাকেরগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধ, আদালতের নিষেধাজ্ঞা জারি

রিপোর্ট আজকের বরিশাল :
বাকেরগঞ্জ উপজেলার কলসকাঠি ইউনিয়নের দক্ষিণ শাদিস গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে আদালতের দারস্ত হয়েছে মৃত আ: হাকিম খানের পুত্র আ: রশিদ খা। এমর্মে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ বরিশাল বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আ: রশিদ খান বাদী হয়ে একই এলাকার মো: মোজাম্মেল হক খান সহ ৭জনকে বিবাদী করে ১৪৪/১৪৫ ধারায় মামলা দায়ের করেন। এমপি কেস নং ২৯১/২০১৯। অন্য বিবাদীরা হলো মো: মোজাম্মল হক খানের পুত্র মো: সেলিম খান, মৃত আ: মজিদ খন্দকারের পুত্র গোলাম মাওলা, রাজ্জাক খন্দকারের পুত্র মনির খন্দকার, মৃত আবুল বাশার খন্দকারের পুত্র ওদুদ খন্দকার ( টিটু), নান্না খন্দকার, ফাহাদ খন্দকার। মামলা সূত্রে জানাযায়, গত ২৭ সেপ্টেম্বর সকালে বিবাদীরা বাদীর সম্পত্তিতে অনধীকার প্রবেশ করে গাছ পালা কাটে এবং পাকা বিল্ডিং নির্মাণের কাজ শুরু করে। বাদী কাজে বাধা প্রদান করিলে বিবাদীরা তাকে প্রানে মারিতে উদ্যোত হয়। বাদী (আ: রশিদ খান) এর ডাক চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে বিবাদীরা হুমকি প্রদান করে ঘটনা স্থল ত্যাগ করে। সূত্রে জানাযায়, খন্দকার ও খান পরিবারের মধ্যে জমি সংক্রান্ত বিরোধ দীর্ঘ দিনের। ২০১৫ সালের ০৯ সেপ্টেম্বর ফাহাদ খন্দকার, পান্না খন্দকার, নান্না খন্দকার, ওদুদ খন্দকার সহ কয়েকজন সন্ত্রাসী মোজাম্মেল খান গংদের রোপিত ছোট বড় ৩০/৩৫টি ফলদ বনজ গাছ কাটে ও তান্ডব চালায়। এসময় মোজাম্মেল খানের ঘরে আগুন দেয়ার হুমকি প্রদান করে সন্ত্রাসীবাহিনী। তাছাড়া মোজাম্মেল হকের ছেলে ও মেয়েকে মোবাইল ফোনে প্রাণ নাশের হুমকি প্রদান ও পথে ঘাটে ডিস্ট্রার্ভ করে এ বাহিনী। সন্ত্রাসী বাহিনীর হুমকিতে মোজাম্মেল খান অসুস্থ হয়ে পড়লে তার ভাই মৃত হাকিম খানের পুত্র মো: জাহাঙ্গীর হোসেন খান ও ভাগনী জামাই রেজা মোশারফ বরিশাল পুলিশ সুপার ও বাকেরগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বরাবর আবেদন করেন। এবং এমের্ম ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে সাংবাদিক সম্মেলন করেন। পরবর্তীতে ফাহাদ ও টিটু খন্দকারের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে মৃত হাকিম খানের পুত্র আ: রশিদ খান, মৃত: আ: মজিদ খানের পুত্র মোজাম্মেল খান, মৃত আফতাজ উদ্দিন খানের পুত্র নুর হোসেন খান বাদী হয়ে স্থানীয় মৃত: আ: রাজ্জাক খন্দকারের পুত্র মো: হেলাল খন্দকার, মৃত: আবুল বাশার খন্দকারের পুত্র টিটু খন্দকার ও মৃত আ: মজিদ খন্দকারের পুত্র মো: হিরু খন্দকারকে বিবাদী করে ৯নং কলসকাঠী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবর সৃষ্ট সমস্যা নিয়ে নালিশী জানায়। ইউপি চেয়ারম্যান আ: রাজ্জাক তালুকদার ২জন ইউপি সদস্য সহ ৫জনকে শালিশ মনোনীত করে ১৮ এপ্রিল ২০১৯ সৃষ্ট সমস্যা শালিশের মাধ্যমে নিষ্পতি করে দেয়ার জন্য দিনক্ষন ধার্য্য করেন। উক্ত শালিশ মিমাংশা না মেনে টিটু খন্দকার গংয়েরা গায়ের জোড়ে গাছ কর্তন ও জমি দখল করে ভবন নির্মাণে চেষ্টা চালায়। এব্যাপারে মোজাম্মেল হোসেন খান বলেন, ‘দীর্ঘদিন টিটু খন্দকার গংয়েরা আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদেরকে ভয়ভিতি প্রদর্শন করে আসছে’। ‘এখন আমার বংশের লোকদের সাথেও ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে’। ‘আমি ন্যায় বিচার চাই’।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2012
Design By MrHostBD